Currently set to Index
Currently set to Follow
Bangla Book Pdf Download (All)

বরফ গলা নদী Pdf Download জহির রায়হান

বন্ধুরা, আজকে নিয়ে আসছি বরফ গলা নদী  জহির রায়হান Pdf free Download latest version link Google Drive । এছাড়াও, সব সময়ের মত বই পড়ুয়া বন্ধুদের অনুরোধ ক্রমে online reading সহ বরফ গলা নদী  পিডিএফ ডাউনলোড লিংক আপডেট করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি।

লেখক জহির রায়হান এর বরফ গলা নদী বইয়ের বিবরণঃ

  • বই:
    বরফ গলা নদী
  • লেখক(Author)
    জহির রায়হান
  • প্রকাশনী(Publisher) ও  ধরণ(type)
    সাহিত্যানুশীলন
  • ফাইল ফরম্যাট (file format):
    epub bangla, MOBI, kindle bangla , Bangla Pdf free Download(ফ্রি পিডিএফ ডাউনলোড)
  • সর্বশেষ প্রকাশ (Last Published Date)
    5th Edition Print, 2021 সাল
  • মোট পৃষ্ঠা (Pages)
    ১২৩ পেজ
  • অঞ্চল ও ভাষা (Content Region & Language)
    বাংলাদেশ
  • ফাইল সাইজ:
    মেগাবাইট

বরফ গলা নদী  জহির রায়হান Pdf Book Review(বই রিভিউ ও পর্যালোচনা):

স্বল্প মূল্য দিয়ে কিনে আনা রত্ন লেখক জহির রায়হান এর বরফ গলা নদী বইয়ের রিভিউ ও পর্যালোচনা করতে বেশ ভালই লাগছে, যেখানে বইটির প্রকাশনীর প্রিন্ট কোয়ালিটি ও প্রচ্ছদ ভালই ছিল।

নিঃসন্দেহে সংগ্রহে রাখার মত এ বইয়ের পরিচয় জানা অর্থাৎ বইটির ভূমিকা লিখেছেন লেখক জহির রায়হান নিজেই, যেখানে লেখক যথার্থ লেখনশৈলী উপহার দিয়েছেন।

বরফ গলা নদী  বইটিতে অনেক শিক্ষণীয় ব্যাপার আছে যা আমাদের জীবন রাঙানোর জন্য হলেও সুপাঠ্য ও বন্ধু মহলে উপহার দেওয়ার মত সবথেকে বেশি প্রাসঙ্গিক বই হবে বলে মনে হয়। আমার খুব প্রিয় একজন লেখক জহির রায়হান, সুযোগ হলে উনার এই অনবদ্য বইটি পড়বেন। এই বই থেকে যেমন কিশোর পাঠকরা পাবে রোমাঞ্চকর অনুভূতি তেমনি অন্য পাঠকরা পাবেন কঠিন বাস্তবতার সন্ধান। লেখক জহির রায়হান এর দূরদর্শিতা লেখার ঘটনা পাঠক মনে ব্যাপকভাবে নাড়া দিয়েছে এবং তাঁর নিখুঁত উপস্থাপন শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পাঠককে একটা টেনশনের মধ্যে রাখতে পেরেছে ও বরফ গলা নদী বইটিকে বাস্তব করে তুলেছে।

ভালোবাসার এ বরফ গলা নদী  বইটি যেন আপনার সুসময় ও দুঃসময়ের বন্ধু হতে পারে এ শুভ কামনা।

বরফ গলা নদী বইয়ের এই সংস্করণটি মোটামুটি ছোট, খুব দ্রুত পড়ে শেষ করা যায় যার কারণে কাহিনী নিয়ে আমি তেমন কিছু লিখলাম না। লেখক জহির রায়হান এর এই বই পড়ে এবং আমার বন্ধু-বান্ধবদের সাথে আলোচনা করে আমার যে ধারনা হলো তা থেকে সংক্ষিপ্ত আকারে লিখলাম। বরফ গলা নদী বই টা না পড়লে এই কঠিন সত্যের সম্মুখীন হওয়া কিংবা রোমাঞ্চকর সেই অনুভূতি পাওয়া সম্ভব নয়।

বাসার কাছাকাছি আসতে ওপাশের দোতলা বাড়ি থেকে ঝপ করে একবালতি পানি কে যেন ঢেলে দিলো মরিয়মের গায়ে। সর্বাঙ্গ ভিজে গেল । প্রথম কয়েক মুহূর্ত একেবারে হকচকিয়ে গেল মরিয়ম। সবে গতকাল শাড়িটা ধুয়ে পড়েছে।কে জানে কিসের পানি!!! ভাবতে গিয়ে সারা দেহ রি-রি করে উঠলো।

বাবা হারিকেনের আলোয় বসে বসে খোকনকে পড়াচ্ছিলেন। “হুমায়ুনের মৃত্যুর পর আকবর দিল্লির সিংহাসনে আরোহন করেন।”

মা বললেন,”মরিয়মটা নেই, বাড়িটা কেমন ফাঁকা লাগছে। তুই একটা বিয়ে কর মাহমুদ।

মাহমুদ বলল,”কি দরকার আরেকটা নিরীহ মেয়েকে অমানুষ বানিয়ে”?

ভ্রুজোড়া অদ্ভুতভাবে বাঁকালো মনসুর ।তারপর আস্তে করে বলল, তোমার কি মনে হয়, মানুষ দুবার প্রেমে পড়তে পারে?

বিব্রত মরিয়ম বললো ,পারে!!

” বরফ গলা নদী” জহির রায়হান রচিত একটি বিখ্যাত উপন্যাস । শত্তর দশকের পটভূমিতে রচিত উপন্যাসটি অর্থনৈতিক কারণে বিপর্যস্ত এক ক্ষয়িষ্ণু মধ্যবিত্ত পরিবারের অসহায়ত্ব গাঁথা।

** উপন্যাসটির কেন্দ্রীয় চরিত্রগুলো — মাহমুদ, মরিয়ম, হাসিনা, লিলি, মনসুর, তসলিম, শাহাদাত, আমেনা।

নিতান্তই মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে মাহমুদ । জীবনের কঠিন বাস্তবতাকে, ধনী-গরীবের মধ্যকার বৈষম্যকে কঠোরভাবে ধিক্কার করে সে। ‘মিলন’ পত্রিকায় চাকরি করে আদর্শ সাংবাদিক হবে। কালে কালে লুই ফিসার হবে!!! কিন্তু না….. দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের বিরাজমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির চাপে তার সেই স্বপ্ন অচিরেই লোপ পেয়ে যায়। একদিন এই চাকরিটা ছেড়ে দেয় সে। ‘
মাহমুদ’ চরিত্রটি বড়ই বিচিত্র; একই সাথে কঠোর আবার ক্ষণে ক্ষণে কোমল। কখনো কড়া গলায় সে বোনদের শাসন করে, আবার মাইনে বাড়লে সেই টাকা বোনদের জন্যই খরচ করবে, এই ভাবনাও মনে মনে পোষণ করে।

মরিয়ম — সে মাহমুদের ছোট বোন। ইন্টার পরীক্ষা দিয়ে এখন টিউশনি করছে। তার প্রথম যৌবনের একটি ভয়াবহ অতীত আছে, তাই সেলিনার (মরিয়মের ছাত্রী) বোনের দেবর – মনসুরকে সে সহজভাবে নিতে পারেনি। নিতান্তই সহজ-সরল চরিত্রটি পাঠক মনকে বেদনায় ভরিয়ে তোলে।

লিলি — মরিয়মের কলেজ জীবনের বান্ধবী। শিক্ষিতা বুদ্ধিমতী ও শান্ত স্বভাবের এই মেয়েটির চরিত্র শুধু মাহমুদকে নয়, মরিয়ম,হাসিনা এমনকি মাহমুদের মাকেও আকর্ষিত করে। উপন্যাসটিতে ধীরে ধীরে অথচ সুস্পষ্টভাবে মাহমুদের সাথে তার জীবন এগিয়ে চলে।

হাসিনা ; মরিয়ম এর ছোট বোন।সদ্য কৈশোরে পদার্পণ করা মেয়েটি নিতান্তই সহজ -সরল ;সাবলীল তার কথা বলার ভঙ্গি ও আচার-আচরণ!! লিলির ভাই তসলিমের সাথে তার ভালোবাসার গল্পটি আমাদের চিরচেনা কৈশোরকেই মনে করিয়ে দেয়!!

সেলিনার বোনের দেবর মনসুর । ধনী, স্বাস্থ্যবান মনসুরকে মেয়ের জামাই হিসেবে কল্পনা করে সেলিনার মা। কিন্তু মানুষের সব স্বপ্ন কি পূরণ হয় ??? হয়না,,,,,,

মনসুর যে ভালবাসে মরিয়মকে। তার সাথে ভাব করার জন্য কখনো পথ চলার অনাহূত সঙ্গী হয় সে।মরিয়মের অসুস্থতার কথা শুনে ওষুধপথ্য নিয়ে হাজির হয় তাদের বাসায়; দিনের-পর-দিন!! মাহমুদ বাদে ওই পরিবারের সবাইকে সে অভিভূত করে নিজের আর্থিক স্বচ্ছলতায়।

উপন্যাসটির অন্যতম দুটি চরিত্র হলো মাহমুদের বন্ধু শাহাদাত ও বন্ধুপত্নী আমিনা। কঠোর ব্যক্তিত্বসম্পন্ন আমেনা দারিদ্র্যের কারণে না খেয়ে মরতেও রাজি; তবু এক মুহূর্তের জন্যও নিজের আত্মসম্মানকে বিসর্জন দিতে প্রস্তুত নয়!!!

দারিদ্র্যপীড়িত একটি পরিবারের হাসি-কান্নার আলেখ্য হলো জহির রায়হানের উপন্যাস ‘বরফ গলা নদী’। সেখানে আছে সন্তানের স্বাধ আহ্লাদ পূরণে ব্যর্থ বাবার হৃদয়ের আকুতি , পুত্র কন্যার প্রতি মায়ের অমোঘ ভালোবাসা;আছে একটি সুখী জীবনের আশা,যৌবনের একটুকরো ভালোলাগা, আছে হাসি কান্নার অন্তরালে একটুখানি প্রাপ্তির ছোঁয়া।।

ব্যক্তিগত মতামত — একটি দুর্ঘটনা বদলে দিতে পারে হাজারো প্রাণের আশা ভরসা ভালোবাসা।

যতবার পড়ি ততবারই ভালো লাগে

**ব্যক্তিগত রেটিং – পাঁচ
**প্রিয় চরিত্র — মাহমুদ
**অপ্রিয় চরিত্র — মনসুর
**পছন্দের উক্তি–
১. জ্বলে-জ্বলে ক্ষয়ে যাওয়া মোমবাতির মত ধীরে ধীরে ফুরিয়ে যাবে সবকিছু!!!
২. হাজার হোক, চক্ষুলজ্জা বলতে একটা প্রবৃত্তি আছে মানুষের!!
৩. কতদিন বলেছি, বড়লোকের বাচ্চাগুলোকে আমি দেখতে পারি না আর তুমি ওদের সঙ্গে হাওয়া খেয়ে বেড়াও!!
৪. কেরানির জীবনে সঞ্চয় সম্ভব নয়।
৫. গরিব হয়েছি বলে বুঝি সাধ – আহ্লাদ নেই আমাদের??
৬. এ সমাজে বাঁচতে হলে মিথ্যের মুখোশ পড়তে হয়!!

বরফ গলা নদী পিডিএফ ডাউনলোড by জহির রায়হান লিংক(pdf):
Download

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button